আপনার ব্রাউজারে যেভাবে JavaScript সচল করবেন

এটা একটা আনন্দের বিষয় যে JavaScript বিগত কয়েক বছরের মধ্যেই সীমিত জ্ঞানের পরিধি থেকে গুরুত্বপূর্ণ একটি ওয়েব ডেভলপমেন্ট দক্ষতায় পরিণত হয়েছে। আজকাল ওয়েব গুলোতে JavaScript এতটাই অবিচ্ছেদ্য একটি অংশ হয়ে উঠেছে যে অধিকাংশ ইন্টারনেট ব্রাউজার কেবল এটাকে রান করার জন্যই একটি আলাদা ইঞ্জিন ব্যবহার করছে।

ওয়েবে ব্যবহারের জন্য JavaScript মজার একটি প্রযুক্তি এবং আপনার ব্রাউজারে সকল ওয়েবসাইটের জন্য এটাকে নিষ্ক্রিয় করার পরামর্শ দেয়া যায় না। জনপ্রিয় অধিকাংশ ওয়েবসাইটগুলি জাভা এর ভিত্তিতে গড়ে উঠেছে, এর অর্থ হচ্ছে পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত বৈশিষ্ট্যগুলিকে চলমান রাখার ক্ষেত্রে তারা JavaScript ব্যবহার করে থাকেন যা ব্যবহারকারীদের জন্য এক উপভোগযোগ্য অভিজ্ঞতা এনে দেয়।

JavaScript কে নিষ্ক্রিয় করা হলে আপনার ব্রাউজার টি পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত কিছু কার্যক্রম তালাকে কিংবা প্রদর্শন করতে ব্যর্থ হবে যেমন বিজ্ঞাপন প্রদর্শন এনিমেশন কিংবা অডিও চালানো। যাই হোক, এখানে খুশির ব্যাপার হলো JavaScript খুব সহজেই চালু করা যায়। পাশাপাশি, এটাকে একেবারেই বন্ধ করার পরিবর্তে এক একটি ওয়েবসাইটের ভিত্তিতে আপনি এটাকে নিষ্ক্রিয় করতে পারেন। 

সুতরাং, আপনি যদি আপনার ব্রাউজারে JavaScript কে নিষ্ক্রিয় করে থাকেন এবং এতক্ষণে আপনি যদি এটাকে সক্রিয় করতে চান, সেক্ষেত্রে আমরা আপনাকে সহযোগিতা করতে প্রস্তুত আছি। আমরা এই গাইডটি প্রণয়ন করেছি আপনাকে সর্বাধিক ব্যবহৃত পাঁচটি ব্রাউজারে JavaScript সক্রিয় করার ব্যাপারে সম্যক ধারণা দেয়ার লক্ষ্যে। এছাড়াও, JavaScript কি, JavaScript কি কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে এবং বাস্তবে JavaScript দিয়ে আপনি কি করতে পারেন সে ব্যাপারে আমরা আপনাকে পরিচিত পড়ে থাকব।

Microsoft Edge
Microsoft Edge
explorer_9
Internet Explorer
Mozilla Firefox
Mozilla Firefox
chrome64
Google Chrome
Opera
Opera
Safari
Apple Safari

আপনার ব্রাউজারে JavaScript নিষ্ক্রিয় আছে। আপনি যদি JavaScript সক্রিয় করেন, সেক্ষেত্রে এই লেখাটির পরিবর্তন হবে।

আপনার ব্রাউজারে JavaScript সক্রিয় আছে। আপনি যদি JavaScript নিষ্ক্রিয় করেন, সেক্ষেত্রে এই লেখাটির পরিবর্তন হবে।

ওয়েব ডেভলপারগণের জন্য পরামর্শ

কোন ব্যবহারকারী যদি কোন স্ক্রিপ্টকে নিষ্ক্রিয় করে থাকেন, সেক্ষেত্রে সর্বাধিক ব্যবহৃত ছয়টি ব্রাউজারে কিভাবে JavaScript কে সচল করা যায়, সে ব্যাপারে তাদেরকে ধারণা দেয়ার লক্ষ্যে এই সাইটটিকে আপনারা লিংক করে দেয়ার বিষয়টি বিবেচনায় আনতে পারেন। আপনাদের প্রয়োজন মোতাবেক আপনারা নিচের কোডটিকে ব্যবহার করতে পারেন কিংবা নিজেদের মত করে পরিবর্তন করে নিতে পারেন।

<noscript>
এই সাইটটির কার্য়ক্রম পরিপূর্ণরুপে পরিপূর্ণভাবে লাভ করতে চাইলে JavaScript চালু করা প্রয়োজন।
আপনার ব্রাউজারে কিভাবে JavaScript চালু করবেন <a href="https://www.enablejavascript.io/"> এখানে দেয়া হয়েছে</a>।
</noscript>

enablejavascript.io এর মাধ্যমে আমরা স্ক্রিপ্ট নিস্ক্রিয় করেছেন এমন ব্যবহারকারীগণের ব্যবহারের অভিজ্ঞতাকে যতটা সম্ভব বৃদ্ধি করে থাকি:

  • আপনার ব্রাউজারের জন্য নির্দেশনাগুলি পেজের উপরে দেয়া আছে
  • সুন্দরভাবে বুঝার জন্য সকল ইমেজ সারিবদ্ধ এবং পূর্ণ আকৃতিতে দেযা আছে

আমরা চাই যে আপনাদের ভিজিটরগণ যত বেশী সম্ভব JavaScript সক্রিয় করে নিবেন!

Google Chrome

  1. আপনার ডিভাইসে গুগল ক্রোম ওপেন করুন।
  2. আপনার স্ক্রিনে উপরে ডান পাশে মেনু আইকন এর উপর ক্লিক করুন।
  3. ড্রপ ডাউন মেনু থেকে সেটিংস সিলেক্ট করুন- নিচের দিক থেকে তিন নম্বর অপশন।
  4. এরপর বাম দিকের সাইডবার মেন্যু থেকে “Privacy and security” এর উপর ক্লিক করুন।
  5. “Privacy and security” এর অধীনে “Site settings” সিলেক্ট করুন।
  6. “Site settings” এর অধীনে “JavaScript” না পাওয়া পর্য়ন্ত স্ক্রল করতে থাকুন এবং এরপর এটাতে ক্লিক করুন।
  7. এরপর সুইচটিকে “Allowed (recommended)” –এ টোগল করুন – সক্রিয় হয়ে গেলে এটা নীল রং ধারন করবে।

অভিনন্দন, আপনি আপনার Google Chrome ব্রাউজারে JavaScript সক্রিয় করেছেন।

  • 1. On the web browser menu click on the "Customize and control Google Chrome" and select "Settings".
  • 2. In the "Settings" section click on the "Show advanced settings..."
  • 3. Under the the "Privacy" click on the "Content settings...".
  • 4. When the dialog window opens, look for the "JavaScript" section and select "Allow all sites to run JavaScript (recommended)".
  • 5. Click on the "OK" button to close it.
  • 6. Close the "Settings" tab.

Internet Explorer

  1. আপনার Internet Explorer ব্রাউজার চালু করুন এবং একটি উইন্ডো ওপেন করুন।
  2. “Tools” এর উপর ক্লিক করুন - যা সাধারণত মেনুবারে সর্ব উপরে থাকে। এরপর, প্রদর্শিত অপশন এর তালিকা থেকে “Internet Options” কে বেছে নিন। এছাড়াও, খুব তাড়াতাড়ি এটাকে খুঁজে পেতে আপনি “Alt Key” ব্যবহার করতে পারেন।
  3. “Security Tab” এর উপর ক্লিক করুন।
  4. “Custom Level” বাটন এর উপর চাপুন।
  5. “Scripting” হেডিং খুজে না পাওয়া পর্য়ন্ত পেজের নিচের দিকে স্ক্রল করতে থাকুন।
  6. JavaScript চালু করতে চাইলে “Active Scripting” নির্বাচন করুন।
  7. “Ok.” এর উপর ক্লিক করুন।
  8. আপনার ব্রাউজারটি রিফ্রেশ করুন।
microsoft edge logo

Microsoft Edge

  1. আপনার Microsoft Edge ব্রাউজারটি ওপেন করুন।
  2. Menu tab ওপেন করতে উপরে ডান কোণায় তিনটি-বিন্দু আইকনের উপর ক্লিক করুন।
  3. Menu tab হতে “Settings” বেছে নিন।
  4. এখন বাম পাশের Settings pane হতে “Site permissions” এর উপর ক্লিক করুন।
  5. “JavaScript” সিলেক্ট করুন।
  6. “Allowed (recommended)” অন করুন।
  1. 1. ie 01
  2. 2. ie 02
  3. 3. ie 03
  4. 4. ie 04
  5. 5. ie 05
Mozilla Firefox

Mozilla Firefox

  1. আপনার Mozilla Firefox ব্রাউজার চালু করুন এবং একটি উইন্ডো ওপেন করুন।
  2. এবার এ্যাড্রেস বারে “about:config” টাইপ করুন এবং এন্টার চাপুন।
  3. অগ্রগণ্যতামূলক সার্স বক্সে গমন করতে চাইলে সতর্কতামূলক মেসেজের নিচে “Accept the Risk and Continue” বাটনে ক্লিক করুন।
  4. এখন অগ্রগণ্যতামূলক সার্স বক্সে “javascript.enabled” লিখুন।
  5. সার্স রেজাল্ট হতে “javascript.enabled” লেখা সম্বলিত অপশনটি নির্দিষ্ট করুন এবং JavaScript কে টোগল করুন।
  6. আপনার ব্রাউজারটি রিফ্রেশ করুন।
  1. 1. ff 01
  2. 2. ff 02
  3. 3. ff 03
  4. 4. ff 04
Opera

Opera

  1. আপনার Opera Mini ব্রাউজারটি চালু করুন।
  2. “Easy Setup” মেন্যু ওপেন করুন।
  3. Easy Setup Menu এর নিচের দিকে স্ক্রল করতে থাকুন এবং “Go to browser settings” নির্বাচন করুন।
  4. এরপর “Site Settings” অপশনটি খুজে পেতে নিচের দিকে স্ক্রল করুন এবং এর উপর ক্লিক করুন।
  5. “Site Settings” এর আওতায় JavaScript লেখা আছে এমন অপশনটি খুজে বের করুন এবং এটা নির্বাচন করুন
  6. JavaScript সক্রিয় করতে চাইলে “Allowed (recommended)” এর উপর টোগল করুন। সক্রিয় হয়ে গেলে এটা নীল রং ধারণ করবে।
  7. অভিনন্দন, এইমাত্র আপনি JavaScript সক্রিয় করেছৈন।
Safari

Apple Safari

  1. আপনার ডিভাইসের “Tools” সেকশনটিতে চলে যান।
  2. “Preferences” সিলেক্ট করুন।
  3. Security আইকনের উপর ট্যাপ করুন।
  4. “Enable JavaScript” এর চেকবক্সটি চেক মার্ক করুন।
  5. আপনার ব্রাউজার পূনরায় চালু করুন।

About

JavaScript কি?

JavaScript হচ্ছে ‘‘কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের জন্য’’ সঞ্চালনমূলক একটি ভাষা যা মূলত যা মূলত ওয়েব পেজে সকল ধরনের গতিশীল কার্যক্রম তৈরি এবং সম্পৃক্ত করে থাকে। প্রযুক্তির জগতে দ্রুত উন্নতির মধ্য দিয়ে, JavaScript হয়ে উঠেছে আধুনিক ওয়েব ডেভলপমেন্টের একটি ভিত্তিস্বরুপ।

এটা সফটওয়্যার এর ডিজাইন ল্যাঙ্গুয়েজ এর সহিত খুব ভালভাবে কাজ করে থাকে এবং কিছু অনন্য বৈশিষ্ট্যকে যোগ করে যে বৈশিষ্ট্যগুলি এটাকে অন্যান্যদের মধ্য থেকে আলাদা করে রাখে। যেখানে CSS এবং HTML এমন কিছু ভাষা যা ওয়েবপেজের স্টাইল এবং গঠনকে উন্নত করে, সেখানে JavaScript ওয়েবপেজে এমন কিছু পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত উপাদানকে সম্পৃক্ত করে যা ব্যাবহারকারীগনের সন্তুষ্টি বাড়িয়ে দেয়।

সুতরাং, এটাই কি তাই যা ওয়েবপেজ পূনরায় লোড না করলেও হটাৎ করেই আপনার ডিভাইসে আবির্ভূত হয় কিংবা পেজের পরিবর্তন করে দেয়? হ্যাঁ, এটাই হচেছ JavaScript

আজকাল JavaScript এতটাই মজার হয়ে উঠেছে যে আধুনিক ওয়েব ব্রাউজারগুলি যেমন Google Chrome, Safari, Mozilla Firefox, Opera, Internet Explorer, Microsoft Edge প্রভূতিতে এটা ব্যবহৃত হয়ে থাকে। জনপ্রিয় মোবাইল ডিভাইস যেমন Android এবং iPhone গুলিও JavaScript ভিত্তিক ব্রাউজার এবং এ্যাপ্লিকেশনগুলি স্বয়ং সম্পুর্ণরুপে চালাতে পারে।f

JavaScript কিভাবে কাজ করে থাকে তা জানাটা আরো কিছুটা সহজ হয়ে থাকে, যখন আপনি এর মহত্বটি উপলব্ধি করতে পারবেন, সুতরাং আসুন এব্যাপারে আরো জেনে নেয়া যাক।

JavaScript এর ইতিহাস

ওয়েব ডেভলপমেন্টের জন্য সর্বাধিক ব্যবহৃত কোডগুলি তৈরির পর খুব সম্ভবত ২৫ বৎসর কেটে গেছে। ইন্টারনেটের উদ্ভব JavaScript এর অবস্থানটাকে এমনটি একটি পর্যায়ে নিয়ে গেছে যা কখনো কল্পনাও করা যায়নি। শুরু থেকেই JavaScript কেবল শক্তিশালী একটি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ হিসেবে এটাকে শক্তিশালী করে তোলেনি বরং এটা আধুনিক ওয়েব ডেভলপমেন্ট এর ক্ষেত্রে ব্যবহারের নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরি করেছে।

১৯৯৫ সালে স্কিম, জাভা এবং নিজের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে নেটস্কেপ কম্মুনিকেশনস এ কর্মরত থাকাকালীন ব্রেন্ডান আইস এই JavaScript তৈরি করেন। ১৯৯০ এর দশকে নেটস্কেপ কমিউনিকেশন এর ব্রাউজারকে ব্যবহারের মাধ্যমে ইন্টারনেটে তাদের এক বড় ধরনের উপস্থিতিকে কাজে লাগিয়েছিল – সেটা ছিল নেটস্কেপ নেভিগেটর, যা প্রথম মূলধারার ওয়েব ব্রাউজার মোজাইক ব্রাউজারের চাইতে বেশী গ্রহনযোগ্যতা লাভ করেছিল। 

নেটস্কেপ কম্মুনিকেশনস এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন মার্ক এ্যান্ড্রিসেন, যিনি ইলিয়নিস ইউনিভার্সিটির ডেভলপার টিমের একজন সদস্য ছিলেন, এই দলটি ১৯৯৩ সালে মোজাইক ব্রাউজার প্রজেক্ট এর উপর কাজ করেছিলেন। এই ওয়েবটি জনপ্রিয়তা লাভ করায়, কারিগরী কোম্পানীগুলি ইন্টারনেটে সবচেয়ে বেশী কার্য়করী ব্রাউজার ডেভলপ করার প্রতিযোগিতায় নেমে পড়ে।

মাইক্রোসফট এই বিষয়টি উপলব্ধি করতে পেরে নেটস্কেপের কাছ থেকে ইন্টারনেটের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণের যুদ্ধে নেমে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার প্রযুক্তির প্রজেক্টটি তৈরির উদ্যোগ গ্রহণ করে। এর মধ্য দিয়ে ব্রাউজার শেয়ার মার্কেটে নিজেদের আধিপত্য বিস্তারের লক্ষ্যে মাইক্রোসফট এবং নেটস্কেপের মধ্যে তীব্র প্রতিযোগিতার সৃষ্টি করে।

কোন এক সময়ে ওয়েব ডেভলপারগণ প্রত্যাশা করলেন যে ওয়েব পেজ গুলোতে গতিশীল বৈশিষ্ট্য সংযোজন করার লক্ষ্যে কোন একটি সঞ্চালনী ল্যাঙ্গুয়েজ তৈরি করা দরকার। প্রাথমিকভাবে তারা জাভা এর উপর তাদের লক্ষ্য স্থির করলেন কিন্তু কালক্রমে তারা এটাও উপলব্ধি করলেন যে ব্যাবহারকারীগনের সন্তুষ্টি লাভের জন্য এর চাইতেও নমনীয় কিছু একটা প্রয়োজন।

নেটস্কেপ বিষয়টি অনুধাবন করতে পারল এবং তারা হালকা একটি সঞ্চালনীমূলক ল্যাঙ্গুয়েজ তৈরীর লক্ষ্য স্থির করলো যাতে করে তা ওয়েব পেজে পারস্পরিক ক্রিয়াশীল কায়ক্রমগুলিকে যুক্ত করতে ওয়েব ডেভলপারগনকে সক্ষম করে তোলে। এই সময়টা ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি সময়, আর এই সময়েই JavaScript এর জনক পরিচিতি লাভ করে থাকেন।

১৯৯৫ সালে নেটস্কেপ ব্রেনডান আইস এর সহিত যোগাযোগ করেন এবং তাদের নেটস্কেপ নেভিগেটর ২.০ ব্রাউজার রিলিজ করার জন্য তাকে সঞ্চালনীমূলক একটি ল্যাঙ্গুয়েজ তৈরি এবং তার বাস্তবায়নের অনুরোধ করেন। যাই হোক, এটাকে তিনি তার বহুল প্রত্যাশিত কোন একটি বিষয়ের উপর কাজ করার সুযোগ হিসেবে বিবেচনা করে থাকেন এবং নেটস্কেপের দলে যোগ দেন। আর এর মধ্য দিয়ে হালকা সঞ্চালনীমূলক একটি ল্যাংগুয়েজের জন্ম হয়। আইস এর নাম দিয়েছিল মোছা কিন্তু পরবর্তীতে এটাকে পূর্ণ নামকরন করে এর নাম দেন লাইভ স্ক্রিপ্ট। কেবল ১০ দিনের মধ্যেই আইচ কার্যকর একটি নমুনা তৈরি করে ফেলেন এবং সেটাকে নেটস্কেপ নেভিগেটর ২.০ বিটা ব্রাউজারে প্রয়োগের জন্য প্রস্তুত করেন।

ব্রাউজার শেয়ার মার্কেটের আধিপত্যকে ধরে রাখার লক্ষ্যে নেটস্কেপ জাভা নামক প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজের ডেভলপার সান মাইক্রো সিস্টেমসের সহিত অংশীদারিত্ব গ্রহন করতে রাজি হয়। এর অর্থ এটাই দাঁড়ায় যে, সান মাইক্রোসিস্টেম ওয়েব ডেলিভারি প্ল্যাটফর্ম হিসেবে নেটস্কেপ নেভিগেটর ব্যবহারকে নিশ্চিত করে যাতে করে জাভা ব্যবহারকারী সম্প্রদায়ের কাছে জাভা এর প্রাপ্যতা বজায় থাকে।f 

১৯৯৬ সালে, প্রায় এক বছর পর, জাভা কমিউনিটির কাছে গ্রহণযোগ্যতা ধরে রাখার ব্যবসায়িক পরিকল্পনার অংশ হিসেবে লাইভস্ক্রিপটকে শেষ পর্য়ন্ত JavaScript হিসেবে পূন:নামকরন করা হয়। নেটস্কেপ নেভিগেটর এর নেভিগেটর টু ব্রাউজার তৃণমূল পর্য়ায়ে কম্পিউটার ব্যাবহারকারীগনের জন্য সঞ্চালনমূলক ল্যাঙ্গুয়েজ হিসেবে উপস্থাপন করা হয়। অন্যদিকে জাভা কে মনমুগ্ধকর ওয়েবের চাহিদার সমাধান হিসেবে বিশেষায়িত টুল হিসেবে গণ্য করা হয়। 

এরপর, মাইক্রোসফট তাদের ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ৩ এর জন্য JavaScript কে নিজেদের মতো করে কারিগরী দিকে থেকে উন্নয়ন করেন। জাভা ব্রান্ডের মালিক সান মাইক্রোসিস্টেমের সহিত আইনি জটিলতা এড়ানোর লক্ষ্যে তারা এটার নাম দিয়েছিল Jscript এবং এটাকে Netscape এর অধীনে নিবন্ধনভূক্ত করা হয়। 

পরিপাটি, স্থিতিস্থাপক এবং নন-ডেভলপারগণের জন্য হাতের নাগালের মধ্যের এই JavaScript (এবং JScript) ওয়েব পেজগুলিকে আর পারস্পরিক ক্রিয়াশীল এবং গতিময় করার মধ্য দিয়ে সেগুলি হয়ে উঠেছিল অনেক বেশী জনপ্রিয়।

দুর্ভাগ্যক্রমে অনুপ্রবেশের দিক দিয়ে দুর্বল সুরক্ষা ব্যবস্থার কারণে তারা উভয়েই নেতিবাচঁক সুনাম অর্জন করতে শুরু করেছিল, এর অর্থ হচ্ছে, মানুষ সামান্য কিংবা একেবারে জ্ঞান না থাকলেও তারা এগুলোতে সহজেই প্রবেশ করতে পারতেন। এছাড়াও, JavaScript ব্যবহারকারীগণকে সন্তুষ্টিদানের পরিবর্তে বরং তা মানুষকে জ্বালাতন করে ছাড়ত (যেমন- পপ-আপ এ্যাড, ব্রাউজার স্নিফিং ইত্যাদি)।

এই সমস্যা সমাধানের জন্য ECMA মানদন্ড হিসেবে এর একটি সুনির্দিষ্ট সমাধান চলে আসে। নেটস্কেপ ও সান মাইক্রোসিস্টেমস্‌ ECMA ইন্টারন্যাশনালের কাছে নথি-পত্র উপস্থাপন করেন, যারা এই মানদন্ডটাকে নিয়ন্ত্রণ করে থাকবেন। মানোন্নয়নটি ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ এবং এমনি একটি নতুন ল্যাংগুয়েজের জন্য এটা ছিল এক উদাক্ত আহবান।

এটা JavaScript কে আরো বিপুল সংখ্যক ব্যবহারকারীগণের কাছে উন্মুক্ত করে দেয় এবং সঞ্চালনীমূলক ল্যাংগুয়েজের উন্নয়নের ক্ষেত্রে ডেভলপারগণের কাছে এক সাড়া ফেলে দেয়। এই মানোন্নয়নটি সেই সকল নেতিবাচঁক মানুষকে দূরে সরে রাখতে সহায়তা করে যারা এই কোডটিকে নেতিবাচঁক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করতেন। সানের জাভা ট্রেডমার্ককে জালিয়াতির হাত থেকে রক্ষার্থে এই ECMA কমিটি এই মানোন্নত ল্যাংগুয়েজকে ECMAScript নামে নামকরণের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন। 

এতে করে আরো বেশী ভূল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়, কিন্তু শেষ পর্য়ন্ত ECMAScript কে নমুনা হিসেবে তুলে ধরা হলো এবং JavaScript সঞ্চালনী ল্যাংগুয়েজ হিসেবে অভিহিত হতে লাগল (যেমনটা এখনও হয়ে থাকে)।

JavaScript কি কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে?

JavaScript এর উদ্ভাবন থেকে শুরু করে আজকে পর্য়ন্ত এর ব্যবহারের মধ্যে পরিবর্তন চলে এসেছে। এই পর্য়ায়ে, প্রশ্ন জাগতে পারে যে কিভাবে একটি সঞ্চালনী ল্যাংগুয়েজ ১০ দিনের মধ্যে ডেভলপ করা যায় যা ইন্টারনেটকে পরিপূর্ণরুপে পরিবর্তন করে দিয়েছে। বেশ, কিভাবে তা সম্ভব হলো তা এখানেই দেখা যাবে:

গতিশীল ওয়েব পেজ

JavaScript ওয়েব পেজের পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত আদান-প্রদান যেমন- এর উপাদান ও কার্ক্রমগুলি বিভিন্ন ওয়েব পেজে সঞ্চালনের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। এছাড়াও, ব্যবহারকারীগণকে এটা নির্দিষ্ট কিছু সময় অন্তে কোন রিফ্রেশ না করেই নতুন নতুন ছবি এবং উপাদান লোড করার সুযোগ করে দেয়।

ওয়েব এবং মোবাইল এ্যাপ ডেভলপমেন্ট

JavaScript এর সবচেয়ে শক্তিশালী দিকটি হচ্ছে যে এটা বিপুল পরিমান লাইব্রেরী এবং কাঠামোকে অন্তর্ভূক্ত করে থাকে যা ক্রশ-প্লাটফর্ম ওয়েব এবং মোবাইল এ্যাপ্লিকেশন তৈরিতে ব্যবহৃত হতে পারে।

গেম ডেভলপমেন্ট

এছাড়াও, JavaScript ওয়েব ভিত্তিক গেম তৈরিতেও ব্যবহৃত হতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে লাইব্রেরী এবং ফ্রেমওয়ার্কের এমনি একটি হোস্ট যা দিয়ে মানুষ ২ডি ও ৩ডি গেম তৈরি করতে পারেন।

সার্ভার ভিত্তিক সমাধান

ওয়েবসাইট এবং এ্যাপ ডেভলপমেন্টের বাহিরেও ডেভলপারগণ শক্তিশালী ওয়েব সার্ভার তৈরিতে JavaScript ব্যবহার করতে পারেন এবং Node.js ব্যবহারের মাধ্যমে সার্ভারের কার্য়ক্রম সম্পন্ন করতে পারেন।

JavaScript কে সক্রিয় করে তোলার সুবিধাসমূহ

ইন্টারনেট জুড়ে এর যেমনটা গুরুত্ব এবং ব্যবহার পরিলক্ষিত হয়ে থাকে তাতে করে JavaScript কে ব্রাউজারে সক্রিয় করে তোলার অসুবিধার চেয়ে সুবিধা অনেক বেশী। JavaScript কে সক্রিয় করলে আপনি যে সুবিধাগুলি পাবেন তার মধ্যে পড়ে: 

অধিকতর পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত ওয়েবসাইট

অধিক পরিমানে পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত ওয়েবসাইট এবং ইন্টারফেস যেমন এ্যানিমেশন, ভিডিও, এ্যাড ব্যানার এবং অন্যান্য সমসাময়িক ওয়েব অভিজ্ঞতাগুলি হাতের নাগালের মধ্যে চলা আসা।

বাড়তি গতি

JavaScript হচ্ছে কম্পিউটার ব্যবহারকারীগণের জন্য এমনি একটি স্ক্রিপ্ট, যা ওয়েবপেজ ব্যবহারকারীগণের পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত কার্য়ক্রমের গতিকে বৃদ্ধি করে থাকে, কেননা এটা সার্ভারে অনুরোধ পাঠানোর হারকে সীমিত রাখে।

সার্ভারের লোডকে সীমিত রাখে

যেহেতু, JavaScript কম্পিউটার ব্যবহারকারীগণের দিকে থেকে কাজ করে থাকে, এটা সার্ভারের সহিত সংযুক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সময়ের চাইতে তুলনামূলকভাবে কম সময় নিয়ে থাকে, যা বস্তুত ব্যান্ডউইথ ও লোডকে সুরক্ষা দিয়ে থাকে।

JavaScript এর সীমাবদ্ধতা

ওয়েব পেজ এবং ব্যবহারকারীগণের পারস্পরিক সম্পর্কযুক্ত কার্য়ক্রমকে উন্নয়নের ক্ষেত্রে JavaScript এর বহুবিধ ব্যবহার থাকলেও, কিছু কিছু বিষয় রয়েছে যা JavaScript সম্পন্ন করতে পারে না। এখানে আমরা JavaScript এর কিছু সীমাবদ্ধতার ব্যাপারে জেনে নেব:

  1. JavaScript এর সবচেয়ে বড় যে সীমাবদ্ধতাটি রয়েছে তা হচ্ছে বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে এটার কোন একক অভিভাবকত্ব নেই।
  2. JavaScript আপনার পেজ সোর্স কিংবা ইমেজের সুরক্ষা দিতে পারে না। এর অর্থ হচ্ছে যে আপনার ওয়েবপেজের ছবিগুলি অন্য কোন ডিভাইস ব্যবহারকারীগণ যারা ওয়েবপেজটি দেখছেন তারা খুব স্বাভাবিকভাবেই সেগুলোকে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।
  3. JavaScript এর কোন মাল্টি প্রসেসর হিসেবে কাজ করার সক্ষমতা নেই। কাজেই, মেমোরির উপর এর কোন নিয়ন্ত্রণ নেই।
  4. সবশেষে, অন্য কোন ডোমেইনে চালু করা হয়েছে এমন কোন ওয়েবপেজে JavaScript প্রবেশ করতে পারে না। এমনকি কোন ব্যবহারকারী একই সাথে অন্য কোন ডোমেইনের ওয়েব পেজগুলিকে দেখতে পেলেও, কোন ডোমেইনের ওয়েবপেজে চালু থাকা JavaScript অন্য কোন ডোমেইনের ওয়েবপেজে থাকা কোন তথ্যে প্রবেশ করতে সক্ষম হবে না।

JavaScript কে যেভাবে নিস্ক্রিয় করা যায়

আপনার ব্রাউজারে JavaScript কে সচল করা হলে সেক্ষেত্রে অনেক সুবিধা পাওয়া গেলেও, অনেক সময় নিরাপত্তার প্রয়োজনে ব্যবহারকারীগণ সাময়িকভাবে এটাকে নিস্ক্রিয় করতে চান। অন্যান্যদের মধ্যে অধিকাংশ আধুনিক ওয়েব ব্রাউজার যেমন-Mozilla Firefox, Google Chrome, Opera, Safari, Microsoft Edge এবং Internet Explorer -এ JavaScript কে নিস্ক্রিয় করা যায়। 

আপনার কম্পিউটারে যদি JavaScript কে নিস্ক্রিয় করা হয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে এর মানে হচ্ছে আপনি ইতিপূর্বেই JavaScript কে নিস্ক্রিয় করে রেখেছেন কিংবা আপনার ব্রাউজারে পূর্ব থেকেই এটাকে নিস্ক্রিয় হিসেবে সেট করা হয়েছিল। আর যদি সেটা সক্রিয় অবস্থায় থাকে, তবে জেনে নিন চাহিদা অনুযায়ী আপনার ডিভাইসের ব্রাউজারে সেটাকে কিভাবে নিস্ক্রিয় করা যাবে।

Google Chrome

  1. আপনার Google Chrome ব্রাউজার ওপেন করুন।
  2. মেন্যু আইকনের উপর ক্লিক করুন (তিনটি বিন্দু), যার অবস্থান হয়ে থাকে সাধারণত উপরের কোণায়।
  3. “Settings” এর উপর ক্লিক করুন।
  4. এবার বাম পাশের মেন্যুতে “Privacy and security” এর উপর ক্লিক করুন।
  5. “Privacy and security” এর অধীনে, “Site Settings” বোতামের এর উপর চাপুন।
  6. “JavaScript Section” টি খুজে বেড় করুন এবং এটাকে নিস্ক্রিয় হিসেবে নির্বাচন করুন।
  7. এরপর done এ ক্লিক করুন এবং আপনার Chrome browser পূনরায় চালু করুন।

Internet Explorer

  1. আপনার ডিভাইসে Internet Explorer ওপেন করুন।
  2. “Tools” নির্বাচন করুন- এটা সাধারণত আপনার ব্রাউজারের উপরের ডান কোণে অবস্থিত।
  3. এর পর নিচের দিকে নেমে আসা ড্রপ ডাউন মেন্যুতে “Internet Options” এর উপর ক্লিক করুন।
  4. এরপর “Security” ট্যাব চাপুন।
  5. “Security” কলামে, আরো একটি পেজ ওপেন করতে “Custom Level” বোতামের উপর ক্লিক করুন।
  6. “Active Scripting” খুজে না পাওয়া পর্য়ন্ত পেজটিকে নিচের দিকে স্ক্রল করুন। এরপর Disable এর উপর ক্লিক করুন।
  7. আপনার ব্রাউজার পূনরায় চালু করুন।
Mozilla Firefox

Mozilla Firefox

  1. আপনার Mozilla Firefox ব্রাউজার ওপেন করুন।
  2. এ্যাড্রেস বারে “about:config” টাইপ করুন এবং এরপর “Enter” এর উপর ক্লিক করুন।
  3. আপনার স্ক্রিনে চলে আসা ঝুকির ব্যাপারে সতর্কীকরণকে Accept করুন।
  4. সার্চ বারে “javascript.enabled” টাইপ করুন এবং এরপর ফলাফলের অপশনে গিয়ে টোগল করুন।
  5. যদি success রেকর্ডটি দেখতে পান, তাহলে বুঝবেন যে আপনি আপনার Firefox ব্রাউজারে সফলভাবে JavaScript কে নিস্ক্রিয় করেছেন।
Contact


This site is protected by reCAPTCHA and the Google Privacy Policy and Terms of Service apply.

শেয়ার করুন

আপনার ব্রাউজারে যেভাবে JavaScript সচল করবেন এবং কেন করবেন http://www.enablejavascript.io/